Select Page

ইউটিউবে প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা পাবো

by Sep 12, 2021Online Tips, Technology0 comments

বর্তমানে বাংলাদেশে একটি জনপ্রিয় পেশা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে ইউটিউবিং।জনপ্রিয়তা বাড়ার সাথে সাথে বিশেষ করে ইউটিউব এর প্রতি তরুণেরা  অনেক বেশি আকৃষ্ট হয়েছে এবং

ইউটিউবারদের ভিতর  কিছু সাধারণ প্রশ্নও জেগে উঠেছে। যেমনঃ ইউটিউব ১০০০ ভিউতে 

 কত টাকা দেয় ? ইউটিউব থেকে কি কি উপায়ে  আয় করা যায়। ইউটিউব মনিটাইজেশন কি? এসইও কি? ইউটিউব থেকে কিভাবে টাকা তোলা হয় ? ইত্যাদি প্রশ্নগুলো অন্যতম।

 

নতুন যারা কাজ শুরু করেছেন এবং কাজ শুরু করার কথা ভাবছেন তারা হয়তো ভাবছেন যে ইউটিউব থেকে প্রতি ১০০০ ভিউতে  কত টাকা আয় করা সম্ভব।এ ধরনের প্রশ্ন মনে আসতেই পারে এটা তেমন অমূলক নয়। কেননা আপনি যেখান থেকে কাজ করবেন সেখান থেকে কত কিভাবে টাকা পাবেন সেটা জেনে রাখা বুদ্ধিমানের কাজ। 

 

ইউটিউবিং শুরু করার পরে দেখা যাবে আপনি মাঝখানে গিয়ে কাজ করার মানুসিকতা হারিয়ে ফেলবেন। অবশেষে আপনি  ইউটিউব থেকে টাকা আয় করতে না পেরে কাজটি বাদ দিয়েছেন। তাই আমরা এখানে  কিভাবে ইউটিউব থেকে প্রতি 1000 ভিউতে কত টাকা পাওয়া সম্ভব এবং কিভাবে টাকা উপার্জন বাড়ানো যায় এবং ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায়গুলো বিস্তারিতভাবে আলোচনা করব। 

 

ইউটিউব থেকে টাকা আয় করার উপায়

ইউটিউব থেকে টাকা আয় করার ক্ষেত্রে আপনার প্রথমত দুইটি জিনিষ প্রয়োজন । তা হলো – একটি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার এবং একটি কম্পিউটার। শুধুমাত্র এই দুইটি জিনিষ হলেই আপনি ইউটিউব থেকে টাকা আয় করতে পারবেন। 

এছাড়া  শুধুমাত্র ইউটিউব ভিডিও দেখেও ইউটিউব থেকে টাকা আয় করা সম্ভব । ইউটিউব থেকে আয় করতে চাইলে  প্রথমত  আপনাকে একটি ইউটিউব চ্যানেল চালু করতে হবে।তারপর  চ্যানেলটিকে ইউটিউব মনিটাইজেশন এর আওতায় নিয়ে আসতে  আবেদন করতে হবে। কিন্তু আমরা দেখি বর্তমানে প্রতি মিনিটে ইউটিউবে চারশোরও বেশি ভিডিও আপলোড হয়ে থাকে ।

 

Google AdSense আমাদের কি হিসাবে টাকা দেয়? এবং কখন কত টাকা দিবে

 ৫ টি জিনিসের উপর নির্ভর করে গুগল এডসেন্স (ইউটিউব) আমাদের টাকা বা ডলার দেয়।

এই ৫ টি জিনিস হলো,

  • কীওয়ার্ড (Keyword)
  • এড ভিউ (বিজ্ঞাপন দেখানোর সংখ্যা)
  • CPC কত হচ্ছে
  • Traffic country
  • CPM কত হচ্ছে

ইউটিউব থেকে প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা আয় করা যায়? ইউটিউব থেকে আয়

অনলাইনে ইনকাম এর একটি অন্যতম মাধ্যম হলো  ইউটিউব । ইউটিউব এ প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা আয় করা সম্ভব ? শুরুতে সবার মধ্যে এটা নিয়ে একটা কনফিউশন রয়েছে । এখানে আমার  ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা এবং কয়েক জন জনপ্রিয় ইউটিউবারদের তথ্য ও মতামত এর উপর ভিত্তি করে তথ্যগুলো প্রকাশ করার চেষ্টা করছি ।শুরুতেই  বলে রাখি ইউটিউব ভিউ এর উপর ভিত্তি করে কোন টাকা দেয় না। ইউটিউব টাকা দেয় আপনার ভিডিও দেখার সময় যে এ‍্যডগুলো  পরে তার উপর কতগুলো ক্লিক পরে  এবং কত বার এ‍্যড দেখানো হয়  তার উপরে ভিত্তি করে । গড়ে প্রতি ১০০০ ভিউতে ২৫০থেকে ৪০০টি এ‍্যড পরে থাকে।  ইউটিউব এ ইনকাম করার জন্য অনেকগুলো  বিষয় রয়েছে । প্রথমত আপনার ইউটিউব থেকে কত আয় হবে এবং  আপনি কোন ক্যাটাগরিতে কাজ করবেন  তা নির্ভর করবে তার উপর।তারপর আয় আরো বেশি হওয়ার ক্ষেত্রে  নির্ভর করবে  কোন দেশ থেকে আপনার ভিডিও দেখছে তার উপর।

 

 

 

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

ইউটিউব চ্যানেল খোলা কোনো কঠিন ব্যাপার না  বর্তমানে এটি অনেক সহজ একটি ব্যাপার। ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম এখানে আপনাকে দেখাবো  । ইউটিউব চ্যানেল খুলতে  শুধুমাত্র একটি নিজস্ব জিমেইল একাউন্ট ও প্রাথমিক কিছু তথ্য পূরন করতে হবে ।আবার  জিমেইল একাউন্ট খুলতে সাধারনত নাম, বয়স ফোন নাম্বার, লিঙ্গ ও ছবি এসব তথ্যের দরকার  হয়৷

আপনার জিমেইল একাউন্ট লিখে, পাসওয়ার্ড লিখে  এরপর ইউটিউবে প্রবেশ করে আপনি প্রোফাইলে গিয়ে Create a Channel এ ক্লিক করে নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল তৈরী করতে হবে । ইউটিউব চ্যানেল খোলার এই পদ্ধতিটি সম্পূর্ন বিনামূল্যের একটি সেবা এতে কোনো টাকা লাগবে না ।

ইউটিউবে সবচেয়ে বেশি আয় করা যায় কোন ধরনের ভিডিওতে বা ক্যাটাগরিতে ?

ইউটিউবের  সব গুলো ক্যাটাগরির ভিতর সবচেয়ে বেশি আয় করতে পারবেন  প্রোগ্রামিং এবং ওয়েব ডেভেলপমেন্ট ও SEO টিউটোরিয়াল এই ধরণের  ভিডিও থেকে একটি বাংলা বা হিন্দি ভাষার় ভিডিও তৈরি করা হয় এই ক্যাটাগরীতে। যদি বাংলাদেশ বা ভারতে ১০০০ বার ভিউ হয় তাহলে  ইনকাম হবে  0.80$ থেকে 1$। এই ক্যাটাগরির ইংলিশ ভাষার একটি ভিডিওতে যদি ভিজিটর আসে আমেরিকা, বৃটেন ,কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স, আমিরাত, জার্মানি, আরব   এই সব দেশ থেকে। তবে ইনকাম হবে  2$ থেকে 5$ পর্যন্ত।   যদি ভিজিটর আসে তাহলে মাঝারি আয় আসে । যেমন মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর,  সৌদি আরব, রাশিয়া, কাজাখস্তান এই ধরনের দেশ থেকে। একই ক্যাটাগরির এসব দেশ থেকে  ভিডিওতে ১০০০ ভিউ হলে আয় হবে  2$ থেকে 3$ ।

 

 

বিজ্ঞাপন কত CPC পাচ্ছেন –

CPM এর মতো ইউটিউব ভিডিও থেকে কত কি  টাকা আয় হবে সেটা নির্ভর করবে CPC এর উপরে। CPC অর্থ  হলো Cost Per Click. মানে আপনার  দেখানো ভিডিওতে যে  বিজ্ঞাপন থাকবে তাতে  কত জন ক্লিক করছে এবং সেই ক্লিক গুলোতে এডসেন্স কত করে দিচ্ছে।

অনেকে আবার এডএর  প্রতি  ক্লিকে $০.২ থেকে $০.৭ বা তার বেশি পান। যদি আপনি প্রত্যেকটা  এডস এ  $০.৩ করে পেয়ে থাকেন  তাহলে সর্ব  মোট ১০০০ এড ক্লিক হয় তাহলে $৩০০ ডলার হবে মানে প্রায় ২৫০০০ টাকার মতো।আর যদি $.০১ করে ক্লিকে পান তাহালে আপনি  মোট ১০০০ ক্লিকে পাবেন $১০০ ডলার মানে ৮০০০ টাকার ওপরে ।

এখন তাহলে আমরা জানলাম যে ভিডিওতে দেখানো বিজ্ঞাপনের এড ক্লিকে যত টাকা করে পাবেন মোট ইনকাম বেশি বা কম  তার উপর নির্ভর করবে। আর তাই ১০০০ এড ভিউতে কত টাকা করে আসবে সেটা সম্পর্ন নির্ভর করবে ভিডিওতে দেখানো বিজ্ঞাপনের এড এর  প্রতি ক্লিকে কত করে পাচ্ছেন।

 

কিভাবে ইউটিউব পার্টনারশিপ প্রোগ্রামের সাথে যুক্ত হবেন

যতক্ষণ ইউটিউব পার্টনাশিপ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ না করবেন ততক্ষন আপনার পক্ষে ইউটিউব থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব হবে না । ইউটিউব পার্টনারশিপ প্রোগ্রামে যুক্ত হওয়ার জন্য অবশ্যই আপনাকে কিছু  শর্ত পূরণ করতে হবে। যেমন :

 

  1. আপনার ইউটিউব চ্যানেলের সঙ্গে একটি গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্ট সংযুক্ত করতে হবে।
  2.  আপনার ইউটিউব চ্যানেলে কমপক্ষে ১০০০ জন সাবস্ক্রাইবার থাকতে হবে।
  3.  সর্বশেষ ১২ মাসে আপনার ইউটিউব চ্যানেলটির ভিডিও গুলোতে কমপক্ষে ৪ হাজার ঘন্টা ভিউ থাকতে হবে।

উপরের শর্তগুলো পূরণ হলেই আপনি ইউটিউব পার্টনারশিপ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণের জন্য আবেদন করতে পারবেন

 

ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন কি

ইউটিউব থেকে টাকা আয় করার ক্ষেত্রে শুধুমাত্র চ্যানেল খোলাই যথেষ্ট হবে না ৷অবশ্যই   আপনাকে ইউটিউব পার্টনারশিপ প্রোগ্রামে যুক্ত হতে হবে। ইউটিউব পার্টনারশিপ প্রোগ্রামে যুক্ত হওয়ার সিস্টেমকে অনেকে আবার  ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশনও বলে থাকে । ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন এর দ্বারা  আপনার ইউটিউব চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখানো  এবং বিজ্ঞাপন এর মাধ্যমে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

 

ভিডিওতে লাভজনক কীওয়ার্ড (keyword) ব্যবহার করুন

আপনার বানানো  ভিডিওর কীওয়ার্ড, টপিক, বা বিষয় এডসেন্স এর ইনকামের উপর প্রভাব বিস্তার করতে  পারে।এখানে  মনে রাখা দরকার  এডসেন্স যে বিজ্ঞাপন গুলো দেখায় সেগুলো অধিকাংশ ভিডিও কীওয়ার্ড এর উপর থাকে।

যেমন :

ধরা যাক আপনি ডোমেইন নিয়ে যে  ভিডিও তৈরি করবেন এবং  এডসেন্স ডোমেইন নিয়ে যে বিজ্ঞাপন টা  রয়েছে সেটা আপনার ভিডিওতে দেখানো হবে । এখানে মনে রাখা দরকার যে , ভিন্ন ভিন্ন বিজ্ঞাপনের জন্য AdSense ভিন্ন ভিন্ন  CPC দিয়ে থাকে।

বেশি CPC (Cost Per Click) পেতে  আপনি Google keyword planner টুল সম্পূর্ণ  ফ্রিতে ব্যবহার করে বেশি সার্চ হওয়া এবং বেশি CPC থাকা কীওয়ার্ড খুঁজে বের করে ভিডিও তৈরি করা শুরু করুন। যাতে  আপনার ভিডিওতে দামি বিজ্ঞাপন (Ads) ব্যবহার করা হয়।  যার ফলে আপনার ইনকাম বৃদ্ধি পাবে।

 

ইউটিউব প্রতি ভিউতে কত টাকা দেয়

সাধারণত কোনো চ্যানেলের View হিসাব করে ইউটিউব  কাউকে অর্থ দেয় না ।ভিডিও দেখার সময় কি পরিমানে বিজ্ঞাপন দেখানো হয় এবং সেগুলোতে দর্শকেরা কি পরিমানে ক্লিক করে তার  উপরে হিসাব করে ইউটিউব থেকে অর্থ প্রদান করা হয় ।কোন চ্যানেলের বিজ্ঞাপন দর্শক কতক্ষন দেখে এবং কতক্ষন দেখার পর স্কিপ করে এসব কিছু সহ আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসাব করে ইউটিউব থেকে টাকা আয় হয়ে থাকে।

ইউটিউবে আমরা বিভিন্ন চ্যানেলে ভিডিও দেখার সময় লক্ষ্য করি যে কিছু  কিছু চ্যানেলে অনেক বেশি  পরিমাণে বিজ্ঞাপন দেখানো হয়। কিছু চ্যানেলে আবার  কোন বিজ্ঞাপন দেখানো হয় না । এই বিষয়টি থেকে আমরা জানতে  পারি  যে , চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার এর উপর ইউটিউবের বিজ্ঞাপন নির্ভর  যোগ্য হয় না । শুধু মাত্র  কিছু ফ্যাক্টর এর উপর  বিজ্ঞাপন নির্ভর করে ।

যেমন এই ফ্যাক্টর গুলোর মধ্যে রয়েছে- ভিডিওটির বিষয়বস্তু কি , ভিডিওটি কি সম্পর্কিত ,   ভিডিওটিতে কোন কোন কিওয়ার্ড  আছে , চ্যানেলটির মান কেমন এবং কোন কোন দেশ থেকে ভিডিওটি দেখা হচ্ছে এগুলোর উপর। এই সবকিছু বিষয়  বিবেচনা করে ইউটিউব কোন নির্দিষ্ট ভিডিওতে বিজ্ঞাপন প্রদান করে ।

সাধারণত শেয়ার মার্কেট, টেকনোলজি , এবং ডিজিটাল মার্কেটিং নির্ভর ইউটিউব চ্যানেল গুলোতে বিজ্ঞাপন প্রদানের হার  অনেক বেশি হয়  । কেননা  অনেক বেশি দামি বিজ্ঞাপন এগুলোতে প্রদান করা হয়। যার কারণে এই ধরনের চ্যানেলগুলো থেকে বেশি পরিমানে আয় করা সম্ভব হয়  ।

এর তুলনায় শিক্ষা বিষয়ক চ্যানেলগুলোতে আয় অনেক কম হয়ে  থাকে।এর কারণ হলো  এই চ্যানেলগুলোর দর্শকেরা সাধারণত 18 বছরের কম বয়সি হয়ে থাকে। যার ফলে বিজ্ঞাপনদাতারা তাদের প্রতি খুব কম আকৃষ্ট হন ।

যাহোক , ইউটিউব কত ভিউতে কত টাকা প্রদান করে, অথবা ইউটিউব থেকে প্রতি 1000 ভিউতে কত টাকা আয় করা সম্ভব এটি সরাসরি বলা সম্ভব না । আপনার ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিও গুলোর কিওয়ার্ড এবং ভিডিওগুলোর ধরন ইউটিউব থেকে অর্থ আয়ের পরিমান কম বেশি নির্ভর করে। 

 

 

 

ইউটিউবে কত ভিউ হওয়ার পর আয় শুরু করা যায়

2019 সালের গুগল এডসেন্স নিয়ম অনুযায়ী কোন চ্যানেল মনিটাইজেশন এর জন্য কমপক্ষে  চ্যানেলটি তে 1000 সাবস্ক্রাইবার থাকতে হবে। এর সাথে  সেই ইউটিউব চ্যানেলটিতে সর্বশেষ এক বছরে কম করে হলেও  4000 ঘন্টা ভিউ থাকতে হবে।

তাই সর্বশেষ এক বছরের মধে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে 4000 ঘন্টা ভিউ হলেই গুগল থেকে আপনার আয় করা শুরু হয়ে যাবে ।

 

বিজ্ঞাপন কত CPM পাচ্ছেন –

আসলে CPM অর্থ  হলো cost per mille (1000 views), কি বুঝতে কষ্ট হচ্ছে ,বুঝলেন না? সহজ ভাবে বলা হলে CPM অর্থ  হচ্ছে – আপনার ইউটিউব ভিডিওতে প্রতি ১০০০ এড ভিউতে এডসেন্স বা বিজ্ঞাপন রা কত টাকা দিচ্ছে বা দেয় । এখানে ভিডিও ভিউ হওয়ার কথা কিন্ত আমি বলিনি। আমি বলেছি আপনার ভিডিও যখন দর্শকরা  দেখে তখন কত বার তাতে এড (ads)দেখানো হয়। আর যখন এই বিজ্ঞাপনের সংখ্যা  ১০০০ এড ভিউ হবে  তখন ইউটিউব আপনাকে কত টাকা দিবে। আর এখানে অনেক কিছুর উপর CPM  নির্ভর করে থাকে ।

যেমন-

  • যে বিজ্ঞাপন দেখছে সেটার মূল্য কেমন।
  • আপনার ভিডিও দেখা মানুষরা বিজ্ঞাপন সম্পর্ন দেখছে কি না।
  • শুধু বিজ্ঞাপন দেখছে নাকি বিজ্ঞাপন ক্লিক করছে।
  • বিজ্ঞাপন অল্প দেখে SKIP করে দিচ্ছে না তো।
  • ভিডিওতে দেখানো বিজ্ঞাপন কোন দেশের মানুষরা দেখছে।

 

উপরের সকল শর্তের  উপর নির্ভর করে ভিডিওতে বিজ্ঞাপনের CPM দেওয়া হয়। আপনার CPM যত ভালো মানের হবে ততো বেশি ১০০০ ভিউতে আয় করার সম্ভবনা অনেক পরিমান বেশি  থাকবে।

 

ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায়

ইউটিউব  চ্যানেল তৈরী করা হলো।এরপর  ভিউ/সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা বাড়ালেন  ,এডসেন্স মনিটাইজ অন করলেন, তারপর এখান থেকে ডলারের অংকে টাকা ইনকাম শুরু হতে লাগলো। 
 ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায় কি এটা অনেকের মনে প্রশ্ন জাগবে ?
 দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই  উপায় খুব সহজ,আপনার এডসেন্স একাউন্টের সঙ্গে আপনার স্থানীয় একটি ব্যাংক একাউন্ট যুক্ত থাকবে।একটি নির্দিষ্ট সময়ে  মধ্যে এডসেন্স একাউন্ট থেকে আপনার  টাকা ব্যাংক একাউন্টে ট্রান্সফার হয়ে যাবে।
এছাড়া  আপনি যদি চান  এডসেন্স থেকে আপনার নামে আপনার আয় করা টাকার সংখ্যা দিয়ে চেক ইস্যু করে সেই টাকা চেকের মাধ্যমে তুলতে পারবেন।কিন্তু  আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে এডসেন্স থেকে আয় করা টাকা নিজের ব্যাংক একাউন্টে ট্রান্সফার করার পর সেটা  চেক মাধ্যমে সেই টাকা নগদীকরন করে নেওয়াটাই হলো  ইউটিউব থেকে টাকার তোলার উপায় গুলোর মধ্য সবচেয়ে সহজ  একটি উপায়।
অনলাইন ইনকাম সম্পর্কে আরোও জানতে চাইলে  এবিষয়ে অনলাইনে ইনকাম ২০২১: অনলাইন থেকে আয়ের সহজ উপায় পোষ্ট টি পড়ে দেখতে পারেন। 

 

ইউটিউবে আয়ের পরিমান

কখনোই জোর দিয়ে এটা বলা সম্ভব নয় যে,ইউটিউব প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা প্রদান করে । এ বিষয়ে নিদিষ্ট নিয়ম নীতি নেই  যার দিয়ে স্পষ্ট করে বলা যাবে প্রতি ভিউ এ আয়ের পরিমান কত হবে ।তবে  আপনার কনটেন্টে কি পরিমান এড দেখানো হচ্ছে, দেখানো এড এর সিপিসি/আর পি এম রেট কত,দেখানো  এডটি কোন কোম্পানি থেকে , এরকম আরোও অনেক কিছু বিষয়ের উপরে এটা  নির্ভর করতে পারে  ।

 যথাযথ  ভাবে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে মনিটাইজেশন চালু করা হলে  অঞ্চল, অডিয়েন্সের ক্যাটাগরি, কনটেন্টের মান এগুলো সব  ইউটিউব আয়ের পরিমানের উপর অনেক বড় ভুমিকা রাখে।আবার দেখবেন  অনেকে বাচ্চাদের খেলনা দেখিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা ইউটিউব থেকে ইনকাম করছে।কিছু কিছু বাচ্চা আছে ইউটিউবে যাদের ফ্যান, ফলোয়ার আর ইনকামের ফিরিস্থির কথা শুনলে আপনার চোখ কপালে উঠবে ।তবে তাদের প্রতি মিলিয়ন ভিউয়ের সাথে ইনকামের যে হিসাব আপনার আমার হিসাব তার সাথে মিলানো কঠিন ,কখনো মিলাতে পারবেন না  ।কারন  আমি আগেই বলেছি অঞ্চল ভেদে বা ভিজিটরের ধরন ভেদে ইউটিউব প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা প্রদান করবে তার নিদিষ্ট কোন পরিমান  নাই।

 

কোন দেশ থেকে ভিউ পাচ্ছেন? – Traffic country

ইউটিউব ভিডিওতে Google AdSense কত ভেউ হলে  আপনাকে কত টাকা দিবে সেটা ৭০% নির্ভর করবে হলো  আপনার ভিডিওতে কোন দেশের ভিজিটর্স দেখছে বা ভিউ হচ্ছে সেটার উপর। 

কিন্তু , আপনি চেষ্টা করে দেখতে পারেন যদি আপনার ভিডিওতে US, UK, New Zealand,Germany, Australia,Canada থেকে ভিজিটর্স নিয়ে আসতে। কারণ যে সব দেশের নাম উল্লেখ করা হয়েছে সে দেশ গুলো থেকে প্রতি (Ads) বিজ্ঞাপনে প্রায় $০.২৫ থেকে $১ ডলার বা তার বেশি CPC দেয়।এতে করে আপনার কম ভিউতে অনেক বেশি টাকা আয় করা সম্ভব। 

এজন্য আমরা  সব সময় খুব ভালো মানের ভিডিও তৈরি করতে চেষ্টা করবো  যেগুলো দেশ বিদেশের বিভিন্ন দেশ থেকে ভিজিটর্স বা ট্রাফিক পাবে। তাহালে CPC এর মাধ্যমে ১০০০ ভিউতে ভালো পরিমানে ইনকাম করতে পারবে।

 

পরিশেষে

উপরের বিস্তারিত  আলোচনা থেকে আশা করি সবাই এটি বুঝতে পেরেছেন যে, ইউটিউবে চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করলে বা ভিডিও ভিউ এর ক্ষেত্রে টাকা প্রদান করে না। তাই প্রতি ১০০০ ভিউতে ইউটিউব কত টাকা প্রদান করে  অর্থা ৎ আপনি কত  টাকা পাবেন সেটি নির্ভর করবে আপনার চ্যানেলের মানের উপর। যদি  ইউটিউবিং আপনার পেশা হয়ে থাকে তাহলে আপনাকে ইউটিউব প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা দেয় সেটা  আমাদের কমেন্ট বক্সে জানিয়ে দিবেন । 

 

Hits: 12

Need Help?

Get In Touch With Us

Find Us in Socials

Use this Form

14 + 1 =

Pin It on Pinterest

Share This